মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান (কার্যকারি উপায়)

মোবাইল নেটওয়ার্ক নিয়ে আমাদের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সমস্যাই পড়তে হয়। যখন গুরুত্বপূর্ণ কারো সাথে কথা বলার দরকার হয় তখনই নেটওয়ার্কের সমস্যা তৈরি হয়। আবার বাইরে কোথাও গেলে কাউকে কল করার প্রয়োজন হলেও ফোনে নেটওয়ার্ক পাওয়া যায় না। অনেক সময় হয়তো আপনি কারো সাথে কথা বলছেন কিন্তু মাঝখানে নেটওয়ার্কের সমস্যার কারণে কলটা কেটে যায়।

আর এই নেটওয়ার্ক এর এই সমস্যাগুলো অনেক বিরক্তিকর। তাই আজকের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমি আপনাদেরকে মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার বেশ কিছু কার্যকারী সমাধান দিব।

মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান

Contents

মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান

নিচে এই বিরক্তিকর সমস্যার কিছু সমাধান দেওয়া হলো। এই সমাধানগুলো ব্যবহার করে আপনি এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে পারেন।

১। মোবাইল রিস্টার্ট (Restart) করা

মোবাইলে নেটওয়ার্ক সমস্যা করলে শুরুতেই যেইটা করতে পারেন তা হলো ফোনটাকে রিস্টার্ট করে দেওয়া। এতে করে আপনার ফোন বন্ধ হয়ে আবার নতুন করে চালু হয়। ফলে ফোন এর র‍্যাম ক্লিন হয়ে যায় এবং মোবাইলের সিম নতুন করে আপনার ডিভাইসের সাথে কানেক্ট হয়। তাই আপনার ফোন এ নেটওয়ার্ক সমস্যা থাকলে তা সমাধান হয়ে যেতে পারে।

২। মোবাইলকে Aeroplane মোড এ নিয়ে যেয়ে আবার অফ করে দেওয়া

মোবাইলের  notification-এ গেলে আপনি একটি অপশন পাবেন Aeroplane। এই অপশনটি একবার অন করে, কিছুক্ষণ পর আবার অফ করে দিবেন।

মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান করতে Aeroplane/Flight মোড অন অফ করা

এই অপশনটি অন করলে আপনার ফোনে নেটওয়ার্ক কানেকশন অফ হয়ে যাবে এবং আপনি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারবেন না। এমনকি কেউ যদি আপনাকে কল করে তাহলেও আপনার ফোনে কল ঢুকবে না। তাই এই অপশনটিকে একবার অন করে অফ করলে অনেক ক্ষেত্রেই মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান হয়।

৩। সিম 2G, 3G নাকি 4G তা চেক করা

যদি আপনার সিমটি 2G হয় তাহলে এটা স্বাভাবিক যে, এখানে নেটওয়ার্কের কোয়ালিটি কম থাকবে। অন্যদিকে আপনার সিমটি যদি 4G  হয় তাহলে নেটওয়ার্ক এর কোয়ালিটি তুলনামূলকভাবে আগে থেকে কিছুটা বেশি পাবেন।

তাই আপনি চাইলে আপনার 2G অথবা 3G  সিমকে 4G করে নিতে পারেন। এতে আপনার নেটওয়ার্কের কোয়ালিটি আগের চেয়ে  ভালো হবে। এখানে আপনার ফোনের প্রসেসর 3G নাকি 4G  সেই বিষয়টা খেয়াল রাখতে হবে।

যদি আপনার ফোনের প্রসেসর 3G হয় তাহলে সেখানে 4G  সিম লাগালেও আপনি 4G স্পিড পাবেন না। যদিও বর্তমানের সব ফোনেই এখন 4G প্রসেসর থাকে। তবে পুরাতন ফোন গুলোতে 3G প্রসেসর থাকে। তাই এই বিষয়টা মাথায় রাখতে হবে।

৪। সিমটি পরিবর্তন করা

অনেক সময় সিমটি পুরাতন হয়ে গেলে মোবাইলে নেটওয়ার্কে সমস্যা করে। অথবা কাস্টমার কেয়ার থেকে আপনার সিমকে বন্ধ করে দিলেও এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই আপনি সিমটি পরিবর্তন করে দেখতে পারেন যে নেটওয়ার্ক পাওয়া যাচ্ছে কিনা।

৫। কানেকশন এ নেটওয়ার্ক মোড চেঞ্জ করে দেওয়া

আপনার মোবাইলের সেটিংস (Settings)  অপশনে যেয়ে কানেকশনস (Connections) এ ক্লিক করতে হবে।

সেটিংস এর কানেকশন অপশন

তারপর সেখান থেকে Sim card manager এ যেতে হবে।

সিম কার্ড ম্যানেজার অপশন

এইখানে আসলে আপনি আপনার ফোনে যতগুলো সিম ব্যবহার করবেন সেগুলো দেখা যাবে। এবং এর পাশে 2G, 3G, 4G অথবা LTE এই ধরনের লেখা দেখতে পারবেন। সেখানে ক্লিক করে Network Mode এ যেয়ে একটু চেঞ্জ করে করে দেখবেন।

নেটওয়ার্ক মোড চেঞ্জ

সব এলাকায় 4G অথবা 3G সাপোর্ট করে না। এক্ষেত্রে নেটওয়ার্ক টাইপটা চেঞ্জ করে দেখবেন যে কোনটাতে ভালো নেটওয়ার্ক পাচ্ছে। এইভাবে চেঞ্জ করে দিলেই আশা করি আপনার মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

৬। সিম কার্ডটি অন্য স্লট এ ব্যবহার করা

আপনার ফোন এ যদি সিম কার্ড এর জন্য একাধিক স্লট থেকে থাকে। সেক্ষেত্রে স্লট চেঞ্জ করে দেখবেন। হতে পারে আপনার একটি স্লট এ সমস্যা ছিলো যার জন্য কানেকশন পাচ্ছিল না। তখন স্লট চেঞ্জ করলে সব সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে।

৭। নেটওয়ার্ক অপারেটর ম্যানুয়ালি সিলেক্ট করা

মোবাইল এর সেটিংস (Settings) অপশনে যাওয়ার পর কানেকশনস (Connections) এ ক্লিক করুন। এরপর মোবাইল নেটওয়ার্কস (Mobile Networks) বাটনে ক্লিক করুন।

মোবাইল নেটওয়ার্ক সেটিংস আপশন

তারপরে নেটওয়ার্ক অপারেটরস (Network Operators) এ ক্লিক করুন। 

নেটওয়ার্ক অপারেটর অপশন

এবার সিলেক্ট ম্যানুয়ালি (Select Manually) তে ক্লিক করে আপনার নেটওয়ার্ক অপারেটরটি ম্যানুয়ালি সিলেক্ট করে দিন।

নেটওয়ার্ক অপারেটর ম্যানুয়্যালি সিলেক্ট করা

৮। সিম সেটিংস থেকে অন করা

আপনার সিম যদি সেটিংস থেকে অফ করে দেওয়া থাকে। তাহলে সেটি Sim Card Settings থেকে অন করে দিন। এতে আপনার ফোনে নেটওয়ার্ক না পেলে তা আবার চলে আসবে।

৯। Access Point Name (APN) রিসেট করা

আপনার মোবাইল এর সেটিংস থেকে Sim Card Settings / Sim Settings অপশনটি খুজে বের করতে হবে। বিভিন্ন ডিভাইসে এটি বিভিন্ন অপশনের মধ্যে থাকতে পারে। 

Sim Card Settings এ আসার পরেই আপনি APN (Access Point Name) অপশনটি দেখতে পাবেন। এখানে ক্লিক করার পরে Reset to default এ ক্লিক করুন। তাহলেই আপনার APN বা Access Point Name রিসেট হয়ে যাবে।

১০। নেটওয়ার্ক বুস্টার ব্যবহার করা

নেটওয়ার্ক বুস্টার হলো এক ধরনের যন্ত্র বা ডিভাইস যা আপনার আশে পাশে থাকা ইন্টারনেটকে বুস্ট করবে। যারা গ্রাম এলাকায় বা এমন কোনো এলাকায় থাকেন যেখানে নেটওয়ার্ক ভালো পাওয়া যায় না সেখানে এই বুস্টার ব্যবহার করলে নেটওয়ার্ক আগের চেয়ে অনেক গুন ইম্প্রুভ হয়।

অনেক সময়ই দেখা যায় বাসার কাছেই টাওয়ার কিন্তু নেটওয়ার্ক ভালো না। গ্রাম্য এলাকায় এইটা প্রায়ই হয়ে থাকে। কারণ গ্রামে যদি টিনের বাড়ি হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে নেটওয়ার্ক এর ঢেউগুলো টিন ভেদ করে ভালো মত ঘরে ঢুকতে পারে না।

অথবা বেশি গাছপালা থাকায়, নেটওয়ার্ক ভালোমত পৌছায় না। তখন আপনি যদি এই বুস্টার ব্যবহার করেন তাহলে এই ডিভাইসটি আপনার আশেপাশের ইন্টারনেটকে আপনার রুমের মধ্যে আনতে সাহায্য করবে।

তবে মনে রাখবেন এইটা তখনি ভালো ফলাফল দিবে যখন আপনার এলাকায় নেটওয়ার্ক থাকবে, কিন্তু আপনার রুম এ বা ঘরে ভালো নেটওয়ার্ক পাবে না।

গ্রাম এলাকায় যারা থাকেন তারা এই নেটওয়ার্ক বুস্টার ব্যবহার করে নেটওয়ার্ক এর স্পিড বাড়াতে পারেন।

১১। কাস্টমার কেয়ার এর সাথে যোগাযোগ করা

আপনার এলাকায় হয়ত কোনো নেটওয়ার্ক এর টাওয়ার নাই। বা আপনার এলাকা হয়ত নেটওয়ার্ক কভারেজ এর বাইরে। এইজন্যও নেটওয়ার্ক এ সমস্যা হতে পারে। তখন আপনি চাইলে কাস্টমার কেয়ার এ কল দিয়ে বিস্তারিত জানতে পারেন এই বিষয়ে।

১২। মোবাইল সার্ভিসিং করানো

আপনার মোবাইল এর টেকনিক্যাল সমস্যার জন্যও নেটওয়ার্ক এর প্রবলেম হতে পারে। তাই এক্ষেত্রে মোবাইল সার্ভিসিং এর দোকানে নিয়ে যেয়ে সমস্যার কথা বললে তারা সেই সমস্যাটি দূর করে দিবে।

এই ছিলো মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যা সমাধানের কিছু উপায়। এই উপায়গুলো অবলম্বন করলে আশা করি আপনার সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে। এখন আপনাদের করা কিছু কমন প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।


কিছু কমন প্রশ্নের উত্তর

ঘরে মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকলে করনীয় কি?

আপনার ঘরে যদি নেটওয়ার্ক না পাওয়া যায় কিন্তু বাইরে গেলে মোটামুটি ভালো নেটওয়ার্ক পাওয়া যায়। সেক্ষেত্রে আমি সাজেস্ট করব নেটওয়ার্ক বুস্টার ইউজ করার জন্য।

মোবাইল নেটওয়ার্ক বুস্টার এর দাম কত?

স্পেসিফিকেশন এর উপর ভিত্তি করে এর দাম বিভিন্ন হতে পারে। তবে মোটামুটি ৪০০০ টাকার মধ্যেই ভালো নেটওয়ার্ক বুস্টার পাওয়া যায়।

শেষ কথা

মোবাইল নেটওয়ার্ক এর সমস্যা দেখা দিলে প্রথমেই সমস্যার কারণটি খুজে বের করতে হবে। তারপর সে অনুযায়ী আপনাকে ব্যবস্থা নিতে হবে। 

আশা করি উপরে দেখানো মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান এর উপায়গুলো ব্যবহার করে আপনি এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাবেন। আর যদি সমস্যার সমাধান করতে ব্যর্থ হন সেক্ষেত্রে আমাকে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন অথবা আমার সাথে যোগাযোগ করবেন। আমি আমার সাধ্যমত সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করব।

ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Comment