সময় টিভি এর মুজাহিদ শুভ এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সি ‍আলো চনা করেছেন করোনা ভাইরাস নিয়ে। সারা পৃথিবীতে ব্যাপক ভাবে ছরিয়ে পরেছে ভাইরাস। সবাই অস্তির হয়ে পরেছে। ভয় ও আতঙ্কে দিনটাকাছে আক্রান্ত দেশ। Mar 5, 2020

করোনা ভাইরাস

জাহিদ শুভঃ কুয়েতের সরকার বলেছে করনা মুক্ত সনদ নিয়ে তার পরে কাজে গোযদান করতে বলেছে। এই ব্যাপারে আপনি কি বলবেন?

ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সিঃ এই ব্যাপারে কুয়েত সরকার কেন এমন সিদ্ধান্ত নিল তা আমার বোধগম্য নয়। অন্য কোন দেশ এমনটা চায়নি উনারা চেয়ে বসলেন । যদি আপনি দেখেন আল্লাহর ইচ্ছা থেকে এখন পর্যন্ত আমরা করনা ভাইরাস মুক্ত । সেই হিসাব করলেও আপনি বলতেই পারেন এটা এমন হল। আর কাউকে যদি করনা প্রমান করতে হয় তাহলে তার লালা, সোয়াব ইত্যাদি নিয় পরিক্ষা করতে হবে। সে যদি সুস্থ থাকে নেজাস, সোয়াব, লালা এসব আসবেই না । তাহলে তার কি পরিক্ষা করবেন ?

জাহিদ শুভঃ চায়না থেকে এখন অনেকই আসছে আমাদের দেশে। অনেক দেশেই তাদের সাথে যোগাযোগ প্রায়ই বন্ধ, অথবা শিথীল করেছে, সেই খানে বাংলাদেশ উল্ট। এই ব্যাপারে কি বলবেন?

ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সিঃ চায়নাতেও প্রকট কমে এসছে, তখন যদি আমরা শক্ত ব্যবস্থা নিতাম এখন জনমনে যে ভয় বা আতংক কাজ করছে সেটা করতো না। চায়না পুরাই কন্ট্রল করতে না পারলেও অনেকটাই নিয়ন্ত্রন করে ফেলেছে। এটা চায়না সরকারের কে ধন্যবাদ।

জাহিদ শুভঃ অর্থনৈতিক ক্ষতি বা সম্পর্ক বিরুপ প্রভাব হবে বলে আমার শক্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি ?

করোনা ভাইরাস – Novel Coronavirus
করোনা ভাইরাস – Novel Coronavirus

ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সিঃ আপাতত দৃষ্টিতে চায়নার ভাইরাস কন্ট্রল। তাই মনে হয়না এমন সিদ্ধান্ত নেয়াটা জরুরি।

জাহিদ শুভঃ চায়নাতে অনেকটা মৃত্যুর হার কমে এসেছে, কিন্তু পৃথিবীর অন্যদেশে মৃত্যুর সংখা বারছে। এটাকি ভাইরাসের প্রভাব ও ধরন পরিবর্তন নাকি অন্য বিষয়?

ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সিঃ মৃত্যু যে বারছে তার কয়েকটা কারন থাকতে পারে। ভাইরাসের একটা ধর্ম হলো যদি দিন অতিবাহিত হয় তার চেহারার পরিবর্তন করতে পারে। এময় বিষয় হলে দেখা যায় ভাইরাস তার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। এরকম মিউটশন হলেও হতে পারে। আবার কোন দেশে যদি এই ব্যাপারে প্রস্তুত না থাকে, রোগিকে সেবা করা আলাদা রাখা, যথাযথ লোকবল না থাকে সেটাও কারন হতে পারে রোগির মৃত্যুর। আবার রোগি যদি অস্বিকার করে বা কষ্ট লুকিয়ে সাধারনরে মাঝে চলাচল করতে থাকে বা রোগি একেবারে দূর্বল না হওয়া পর্যন্ত সবার সাথে মিশতে থাকে, চিন্তা করুন তাহলে সে রোগটা কে কোন পর্যায়ে রেখে এসছে। আপনি উদাহারন দেখেন ইরানে রোগ লুকানো খেলা লেখে তাদের অবস্থা এখন সবার চেয়ে নাজুক। তারা এখন প্রায় চিনের মত আক্রান্ত অথবা কাছাকাছি।

বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থা ও কিন্তু বলছে, কেউ যেন এই রোগের ব্যাপারে লুকচুরি না খেলে, এতে আক্রান্ত দেশ ও ব্যাক্তি উভয় এই রোগটাকে ছরিয়ে দিতে পারে বিশ্বজুরে।

জাহিদ শুভঃ বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থার প্রধান বলেছে এই ভাইরাস খুবই ব্যতিক্রমি একটা ভাইরাস, এটা থেকে আমরা ঝুকি মুক্তনা। আমরা অনেকটাই অন্ধকারের মাঝেই আছি, এই ব্যাপারটা আপনি কিভাবে দেখেন?

ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সিঃ আমি একজন ছোট মানুষ উনার ব্যাপারে মন্তব্য করা আমার ঠিকনা। তবে উনার, ইদানিং কালের কথা হলো এভরি থিং আন্ড্রার কন্ট্রল, ভয়পাওয়ার কিছুনেই, এই কথা আর আপনি বললেন কথা তো তাই মিলছেনা।

জাহিদ শুভঃ আমাদের প্রস্তুতি কেমন হওয়া উচিত, বিভিন্ন বন্দর ও এয়ারপোর্ট গুলোতে কি ব্যবস্থা নেয়া উচিত, হাসপাতাল ‍গুলোর কি ব্যবস্তা নেয়া উচিত, আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি কেমন হওয়া উচিত বলে আপনি মনে করেন?

ডাঃ সাইফ উল্লা মুন্সিঃ থার্মাল স্ক্যানারই একমাত্র রোগ বাছাই করার উপায় না। আমাদের কে, বাইরে থাকে আশা রোগির ডিটেইলস নিয়ে আমাদের তবেই তাকে ছারতে হবে।

করনা ভাইরাসের সব তথ্য